Main Menu

স্টেশন মাস্টারের ভুলে ৮ বগি লাইনচ্যুত, উত্তরবঙ্গে রেল-সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

 

শারমিন শিলা:: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়ে আগুন লেগেছে। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রংপুরগামী ‘রংপুর এক্সপ্রেস’ ট্রেনের ইঞ্জিনসহ ৮ টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে আগুনের ঘটনা ঘটে। এত ইঞ্জিনসহ ৪ টি বগি পুড়ে গেছে। আহত হয়েছেন ট্রেনের দুই চালকসহ অন্তত ২০ জন। এ ঘটনায় ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার রেলস্টেশনে ঢোকার সময় এ দুর্ঘটনা। স্টেশন মাস্টারের ভুলেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। স্টেশন মাস্টার ভুল করে মিটারগ্রেজ ট্রেনের সিগন্যাল দিয়ে দেন ব্রডগেজের লাইনে। এতে ৮ টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পাশের লাইনে চলে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাকা থেকে রংপুরগামী রংপুর এক্সপ্রেস বৃহস্পতিবার বেলা ২টায় উল্লাপাড়া রেলস্টেশনে ঢোকার মুখে বগি লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। টেনটি দুই নম্বর লাইন দিয়ে স্টেশনে ঢোকার কথা ছিল। কিন্তু স্টেশনমাস্টার এক নম্বর লাইনে সিগন্যাল দিয়ে দেন। এতে দুর্ঘটনায় পড়ে ট্রেনটি। মুহূর্তেই ইঞ্জিনসহ ৫টি বগিতে আগুন ধরে যায়। কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে যায় পুরো এলাকা। যাত্রীরা আতঙ্কে ছোটাছুটি শুরু করেন। অনেকে ট্রেনের জানালা দিয়ে লাফিয়ে পড়েন। পরে দমকল বাহিনী ঘটনাস্থলে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। বেলা ২টা ৩০ মিনিটে এ প্রতিবেদন লেখার সময় আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছিল।

সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুল হামিম আগুনের তথ্য নিশ্চিত করে জানান, দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

এ ঘটনায় ৪০০ থেকে ৫০০ গজ রেললাইন উপড়ে গেছে। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণ ও উত্তরবঙ্গের রেলযোগাযোগ। উত্তরবঙ্গের সড়ক যোগাযোগও বন্ধ রয়েছে।

এ দুর্ঘটনায় কারো নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। তবে চালকসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। দুই চালক গুরুতর আহত। আহতদের মধ্যে ৭-৮ জনকে উল্লাপাড়া কাওয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত ১৬ জন নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী।

সোমবার দিবাগত রাত পৌনে ৩টার দিকে কসবার মন্দবাগ নামক স্থানে তূর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।






আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*