Main Menu

এবার মুখোমুখি ওয়াইসি-মমতা

শারমিন লাখি:: নিজের দলকে নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের করা সমালোচনার কড়া জবাব দিয়েছেন অল-ইন্ডিয়া মজলিসে-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিনের প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি। ভয় ও হতাশা থেকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই ধরনের কথা বলেছেন বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

সোমবার কোচবিহারে এক কর্মিসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, বিজেপির কাছ থেকে টাকা নেয় আসাদউদ্দিন ওয়াইসির দল সর্বভারতীয় মজলিসে-ই-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন।

সম্প্রতি বিধানসভা উপনির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গ লাগোয়া বিহারের পূর্ণিয়া জেলার কিশানগঞ্জ কেন্দ্রে জয়লাভ করে সর্বভারতীয় মজলিসে-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিন।

এরপরই হঠাৎ কোচবিহার জেলাজুড়ে দলটির রাজনৈতিক পোস্টারে ছেয়ে যায়। তাতে লেখা- ‘অপেক্ষা শেষ, এবার মিশন পশ্চিমবঙ্গ’।

হায়দরাবাদভিত্তিক দক্ষিণের এই রাজনৈতিক দলের হঠাৎ এমন সক্রিয়তায় চমকে ওঠেন শাসক তৃণমূলের নেতারাও। তার পরই কোচবিহার সফরে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাবধান বাণীর তাৎপর্য খুঁজছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

মঙ্গলবার এর কঠিন জবাব দিয়েছেন এমআইএম প্রধান ওয়াইসি। তিনি বলেন, ‘আমার দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে বাংলার মুসলমানদের আপনি এই বার্তা দিলেন যে, ওয়াইসির দল আপনার রাজ্যে শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। এই ধরনের মন্তব্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভয় ও হতাশাই ফুটে উঠেছে।’

সোমবার যদিও মুখে ওয়াইসির নাম নেননি মমতা। নাম উল্লেখ না করেই তিনি বলেন, ‘রাজনীতির মধ্যে হিন্দু উগ্রপন্থা আছে, কিছু সংখ্যালঘুদের মধ্যেও উগ্রপন্থা বেরিয়ে গিয়েছে। বিজেপির কাছে এরা টাকা নেয়। হায়দরবাদে তাদের বাড়ি।’

উগ্রপন্থার অভিযোগ নিয়ে মমতাকে নিশানা করে পাল্টা অভিযোগ তুলতেও ছাড়েননি আসাদউদ্দিন। তিনি বলেন, ‘বাংলার সংখ্যালঘুদের যে উন্নয়ন হয়নি, এটা বলার জন্য ধর্মীয় উগ্রপন্থার দরকার হয় না। হায়দরবাদের একটি গোষ্ঠী নিয়ে দিদি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যয়া) যদি এতই উদ্বিগ্ন, তা হলে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি কীভাবে ৪২টির মধ্যে ১৮টি আসন পেল।’






আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*