Main Menu

নবীনগরে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে চাচা ভাতিজার মৃত্যু

শফিকুর রহমান:: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। অপরদিকে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ এক নারীর মঙ্গলবার ভোরে মৃত্যু হয়েছে। সোমবার রাত ১টার দিকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ওই নারী দগ্ধ হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নবীনগর প্রতিনিধি জানান, মঙ্গলবার রাত ৩টার দিকে নবীনগর উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের পূর্বপাড়া মহল্লার কাচারীমোড়ের একটি চায়ের দোকানে গ্যাস সিলিন্ডারের বিস্ফোরণ ঘটে। এতে শ্রীরামপুর গ্রামের পূর্বপাড়া মহল্লার শাহ্ আলম মিয়ার ছেলে বায়জীদ মিয়া (১৮) ও একই গ্রামের খলিল মিয়ার ছেলে মো. আলমগীর হোসেন (২০)।

তারা সম্পর্কে চাচা-ভাতিজা বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ব্যাপারে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রণজিত রায় জানান, রাত ৩টার দিকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দোকানে আগুন লেগে যায়। এতে দগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে বায়জীদ ও আলমগীর মারা যান। পুলিশ ও স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ দুটি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপতালে পাঠানো হয়েছে।

রাজশাহী ব্যুরো জানায়, পুঠিয়া উপজেলায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ সালমা খাতুনের (৪২) মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। কিসমত জামিরা গ্রামের কামরুল ইসলামের স্ত্রী সালমা বেলপুকুর ইউনিয়নের সাবেক সদস্য এবং জামিরা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক।

এলাকাবাসী জানায়, সোমবার রাত ১টার দিকে শয়নকক্ষে রাখা একটি গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়। এতে সালমা মারাত্মক দগ্ধ হন। তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এরপর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়। সালমার স্বামী কামরুলও দগ্ধ হন। রামেক হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে তিনি বর্তমানে বাড়িতে অবস্থান করছেন।






আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*